মঙ্গলবার,২৮শে জুলাই, ২০১৫ ইং,রাত ৯:১৮  

নেতাদের আধিপত্য ধরে রাখতেই নারায়ণগঞ্জ বিএনপির বিরোধ থামছে না ॥ বিরোধ মিটিয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করার চাপ রয়েছে বিএনপির হাই কমান্ডের

উদ্যোগের অভাবে বিএনপির বিরোধ মিটছে না
নারায়ণগঞ্জ বিএনপির নেতারা বিরোধ ভুলে এক মঞ্চে আসতে চাইলে উদ্যোগ নিয়ে কেউ এ বিরোধ মিটানোর দায়িত্ব না নেয়ায় বিরোধ মিটছে না। বিএনপির কর্মীদের অভিযোগ, জেলা বিএনপির দায়িত্বশীল নেতারা অনেক সময় দায়িত্বহীন ভাবে কিছু বিচ্ছিন্ন বক্তব্য দিয়ে দলের বিরোধকে আরো চাঙ্গা করে তুলে। যে কারণে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির বিরোধ মিটানো যাচ্ছে না। কর্মীদের মতে, জেলা বিএনপির দীর্ঘদিনের বিরোধের কারণে কিছু দিন আগে শেষ হওয়া সরকার বিরোধী আন্দোলনে সফলতা পায়নি নারায়ণগঞ্জের নেতাকর্মীরা। সরকার বিরোধী আন্দোলনে ব্যর্থ হওয়ার পর থেকে বিএনপির নেতারা ঐক্যবদ্ধ হওয়ার বিষয়টি উপলব্ধি করতে পারে। আর এ থেকেই বিএনপির শীর্ষ পর্যায় থেকে শুরু করে দলের কর্মীরা এখন ঐক্যবদ্ধ হওয়ার বিষয়টি নিয়ে ভাবতে শুরু করেছে। তবে কেউ যদি দায়িত্ব নিয়ে বিরোধ মিটানোর জন্য এগিয়ে আসতো তা হলো জেলা বিএনপির বিরোধ অনেক আগেই মিটে যেত বলে মনে করছেন দলের তৃনমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। রাজনৈতিক বোদ্ধা মহলের মতে, জেলা বিএনপির বিরোধ মিটাতে হলে নারায়ণগঞ্জের শীর্ষ নেতাদের উস্কানী মূলক বক্তব্য পরিহার করতে হবে। অন্যথায় এ বিরোধ কোন ভাবেই মিটানো সম্ভব নয়। এ ব্যাপারে দলের শীর্ষ নেতাদের সচেতন হতে হবে। সূত্রমতে, দীর্ঘদিন ধরে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির রাজনীতিতে বিরোধ চলে আসছে। বিভিন্ন গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পালন করছে রাজনৈতিক কর্মকান্ড। মূল দলের পাশাপাশি এ বিরোধ অঙ্গ সংগঠনে ছড়িয়ে পরছে দিনের পর দিন। দলের শীর্ষ নেতারা নিজেদের মধ্যকার আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টার কারনেই বিএনপির বিরোধ শাখা প্রশাখায় ছড়িয়েছে এমন অভিযোগ বিএনপির তৃনমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের। কর্মীদের অভিযোগ, দলের শীর্ষ নেতাদের বিতর্কীত কর্মকান্ডের কারনে দলের মধ্যকার বিরোধ আরো চাঙ্গা করে তুলে। শীর্ষ নেতাদের বিতর্কীত কর্মকান্ড পরিহার করতে পারলে বিএনপির বিরোধ অনেক আগেই মিটে যেত। এছাড়া বিএনপিকে নতুন করে ঢেলে সাজানোর পরিকল্পনা হাতে নিয়ে বিএনপির নীতিনির্ধারকরা। কেন্দ্রীয় বিএনপি, ঢাকা মহানগর বিএনপির পর নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরকে বেশী প্রধান্য দিচ্ছে দলের হাই কমান্ড। ইতোমধ্যে নারায়ণগঞ্জের বিএনপির রাজনীতি নিয়ে বিএনপির চেয়ারপারসর বেগম খালেদা জিয়া জেলা বিএনপির সভাপতি এড. তৈমুর আলম খন্দকার, সাবেক এমপি এড. কালাম, গিয়াস, মহানগর যুবদলের আহবায়ক খোরশেদ, জেলা ছাত্রদলের আহবায়ক মাসুকুল ইসলাম রাজিবের সাথে পৃথক পৃথক কথা বলেছে। আগামী দিনে বিএনপিকে কী ভাবে আরো সাংগঠনিব ভাবে শক্তিশালী করা যায় এ বিষয়গুলো উঠে এসেছে খালেদা জিয়ার আলোচনায়। এছাড়া এসব নেতাদের নানা দিক নিদের্শনাও দিয়েছেন বলে বিএনপির বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে। তবে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির বিরোধ সম্পর্কে কেন্দ্রীয় নেতারা খুব ভাল করেই যানে। তবে এতোদিন বিরোধ থাকলেও আগামী দিনগুলোতে বিরোধ মিটিয়ে এক সঙ্গে কাজ করার ব্যাপারে তাগিদ দিয়েছেন। তবে বিএনপি যদি বিরোধ মিটাতে ভুল করেন তা হলে আগামীদিনে বিএনপির জন্য আরো কঠিন সময় অপেক্ষা করছে বলে মনে করছেন বোদ্ধা মহল।

  বিনোদন বার্তা
  মাঠ বার্তা
  এই কাল - এই সময়
  প্রবাসে-পরবাসে
  বানিজ্য বার্তা
  ফিচার বার্তা
  তথ্য ও প্রযুক্তি
  স্বাস্থ্য কথা
  অপরাধ বার্তা